বঙ্গবীরের জন্মদিন এবং তাঁর বহিষ্কারের ইতিকথায় আমি নতুন স্ট্যাটাসে যা লিখলেন পরীমনি, ভাইরাল পরীমনির মতো সৌভাগ্য হয়নি আবু ত্ব-হার পরিবারের সরকারের পদক্ষেপে নিত্যপণ্যের দাম সহনীয় পর্যায়ে আছেঃ বাণিজ্যমন্ত্রী আমাদের এক হাজার নেতা-কর্মী করোনায় মারা গেছেঃ তথ্যমন্ত্রী আমাদের এক হাজার নেতা-কর্মী করোনায় মারা গেছেঃ তথ্যমন্ত্রী গাছ লাগানোর আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষা হবে কিনা জানালেন শিক্ষামন্ত্রী জাবির শিক্ষক নিয়োগ স্থগিত জানাজার সঙ্গে সম্মান প্রদর্শনের কোনো সম্পর্ক নেই, সংসদে শিরীন আখতার পরীমনিকে ধর্ষণচেষ্টা: অবশেষে চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির ‘তীব্র নিন্দা জ্ঞাপন’ পরীমনিকে ধর্ষণচেষ্টা: অবশেষে চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির ‘তীব্র নিন্দা জ্ঞাপন’ টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ ফাইনালের জন্য নিউজিল্যান্ডের দল ঘোষণা নাবালক বরের বিয়েতে বাঁধা হয়ে দাঁড়াল ভ্রাম্যমাণ আদালত ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে প্রথম এক ঘণ্টায় ৫০০ কোটি টাকা লেনদেন ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে প্রথম এক ঘণ্টায় ৫০০ কোটি টাকা লেনদেন শাকিবের সিনেমায় গাইলেন ন্যান্সি ইহুদিরা জেরুজালেমে পতাকা মিছিল করলে রকেট হামলা শুরু: হামাস ইহুদিরা জেরুজালেমে পতাকা মিছিল করলে রকেট হামলা শুরু: হামাস নাসিরদের মাদক মামলায় রিমান্ড চাইবে পুলিশ

ধান শুকানোর মহোৎসব

আব্দুল্লাহ আল মামুন (সোহান) - মণিরামপুর প্রতিনিধি

প্রকাশের সময়: 07-05-2021 20:40:31

Photo caption :

প্রখর রোদ উপেক্ষা করে মণিরামপুরে বাড়ি বাড়ি বধুরা ধান শুকানোর কাজে ব্যস্ত সময় পার করছেন। এ ধান শুদ্ধ করার পর শুকানোর পরেই তা মাড়িয়ে তৈরী হবে খাওয়ার চাল। শুধু গৃহবধুরা নন, কৃষাণী নন ও পরিবারের সকল সদস্যরা এই কাজে সহযোগিতা করছেন।

উপজেলার চন্ডীপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয় মাঠে সরেজমিন দেখা যায়, ধান শুকানোর মহোৎসব। আকাশে মেঘ জমেছে তাই পরিবারের ছোট থেকে বয়োবৃদ্ধ সবাই মিলে ধান উঠানোর কাজে ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন। এদের কেউ সাপডা দিয়ে ধান এক জায়গায় করছেন, কেউ ঝাড়ু দিয়ে ধান কুড়াচ্ছেন, কেউ বা আবার ডালা দিয়ে ধান বস্তায় ভরছেন।

শাহিদা বেগম “দেশচিত্র” প্রতিনিধিকে বলেন, সেদ্ধ ধানে এট্টু পানি নাগলি চাল বানাতি কষ্ট হবেনে। এতে করে ওই চালের ভাত আর খাওয়া যাবেন না বাবা। এজন্যি স্কুল মাঠে ধান অ্যানে বাড়ির সবাই মিলে রোদি (রোদে) ধান শুানের কাজ করতেছি। তার কাজে ছেলে হাবিবুর রহমান সহযোগিতা করছিলেন। শুধু সাহিদা পরিবার না, ওই গ্রামের অধিকাংশ নারী-পুরুষ ওই মাঠে ধান শুকাচ্ছিলেন। চলতি বোরো মৌসুমে মণিরামপুরে মাঠ থেকে ধান কাটা প্রায় শেষের পর্যায়। এ মুহুর্তে ধান ঝাড়া (পরিস্কার) করাও শেষের পথে। পরবর্তি আমন মৌসুম পর্যন্ত খাওয়ার চাল বানাতে ব্যস্ত সময় পার করছেন তারা। তাইতো গ্রামের সিংহভাগ পরিবারে চলছে ধান সেদ্ধ ও শুকানোর কাজ। জামাই ইব্রাহিম তার শাশুড়ি নূরজাহানকে ধান শুকানোর কাজে সহযোগিতা করছেন। অবশ্য বসে ছিলেন না মেয়ে আসমাও, তিনি বাবার বাড়িতে বেড়াতে এসে মাকে সাহায্য করছেন। কথা হয় অপর ইউসুফ আলী নামে এক কৃষকের সাথে। তিনি জানান, আগে গ্রামের প্রত্যেক গৃহস্থ বাড়ি সংলগ্ন খলেন (বড় উঠান) থাকতো। কিন্তু আজ গ্রামের অধিকাংশ বাড়িতে ফাঁকা জায়গার অভাব। সেই কারনে স্কুল মাঠ কিংবা ফসলি মাঠের ফাঁকা জায়গায় নাইলোনের সুতোই বুনা নেট (জাল)এর উপর ধান শুকানো হচ্ছে।