/ শিল্প ও সাহিত্য

২১শে ব‌ই মেলায় সজীবুল আলম সজীবের'র প্রথম কবিতার বই 'কবিতা জীবন বলে'

সায়েম আহমাদ - রিপোর্টার

আপডেট: 02-04-2021 03:02:28

২১শে ব‌ই মেলায় সজীবুল আলম সজীবের'র প্রথম কবিতার বই 'কবিতা জীবন বলে'


অমর একুশে ব‌ই মেলা দেশের সমগ্র লেখকদের ব‌ই প্রকাশের একটি বড় প্লাটফর্ম। আর এমন‌ই এক প্লাটফর্মে নবীন তরুণ এক লেখক, সজীবুল আলম সজীবের প্রথম বই 'কবিতা জীবন বলে" প্রকাশিত হয়েছে। অল্প বয়সে তার এ ধারাবাহিক অর্জনের রহস্য এবং তার প্রথম বই ২১শে ব‌ই মেলায় প্রকাশিত হ‌ওয়া সমন্ধে নানা বিষয়, তার একান্ত সাক্ষাৎকারে ওঠে এসেছে। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন- দেশচিত্র পত্রিকার রিপোর্টার সায়েম আহমাদ।


রিপোর্টার: কেমন আছেন?

সজীব: আলহামদুলিল্লাহ, ভালো আছি। সকলের ভালোবাসায় বেঁচে আছি। আপনি কেমন আছেন?

রিপোর্টার: আলহামদুলিল্লাহ ভালো। আমরা যতটুকু জেনেছি 'কবিতা জীবন বলে' তো আপনার প্রথম ব‌ই, তাই না? মূলত এটি আপনার কী ধরণের ব‌ই?

সজীব: 'কবিতা জীবন বলে' আমার প্রথম প্রকাশিত বই। এটি মূলত একটি কাব্যগ্রন্থ বা কবিতার বই।

রিপোর্টার: আচ্ছা! আমার জানামতে আপনি ছাত্র। এতো দ্রুত ব‌ই বের করার কারণ বা ইচ্ছে কীভাবে আসল? আর আপনার পরিবারের ব্যাক গ্রাউন্ডে কী কেউ লেখক আছেন?

সজীব: বই প্রকাশের বিষয় নিয়ে যদি বলতে চাই তাহলে এক ইতিহাস বলতে হবে তবে সংক্ষিপ্ত করে বলি।

লেখালেখির অভ্যেসটা অনেক ছোটো থেকে। আমি একটা কথায় বিশ্বাস করি, 'যা মুখে বলা যায় না তা খাতায় লিপিবদ্ধ করে রাখো কলমের কালির ফোঁটায়।' যখন সব কথা বলতে পারতাম না হাজার ইচ্ছে থাকার পরও ঠিক তখন সবকিছু লিখে রাখতাম আর সে থেকে লিখতে লিখতে কেনো জানি অনেক কবিতা জমে গেলো, কবিতার সাথে এক অন্যরকম প্রেম হয়ে গেলো। আর আমি একটা কথা সব সময় বলি, 'তারুন্যের সময়টা জীবনের দেওয়া সব থেকে বড় উপহার' তাই এই সময় যদি একটা বই লিখতে না পারি যে বিষয়টা মনে হয় আমি পারি সেটা যদি কাজে করে দেখাতে না পারি তবে জীবনের কাছে ঋণি থেকে যাবো। আর এই বইটা মনের অজান্তেই লিখে ফেলেছি তারপর প্রকাশক প্রকাশ করেছে। সবকিছুই যেনো এক আচমকা গল্প।

আর পরিবারের কেউ লেখক বলতে আমার বাবা এডভোকেট মোহাম্মদ খোরশেদ আলম একজন লেখক তার এই নিয়ে আইনের উপর দু'টি বই প্রকাশিত হয়েছে। আর সম্ভবত বাবার নিকট থেকেই এই সুপ্ত প্রতিভা এসেছে বলে আমি মনে করি। রক্তের একটা টান আছে বলে মনে করি।

রিপোর্টার: আপনার অনূভুতি সম্পর্কে সংক্ষিপ্ত ভাবে জানতে চাই। ২১শে ব‌ই মেলায় কেমন সাড়া ফেলবে বলে আপনি মনে করেন? তথাপি সবমিলিয়ে আপনার অনুভূতি কেমন?

সজীব: আমার অনুভুতি যদি বলতে চাই তবে বলবো অনেক বেশি আশাবাদী এই বই নিয়ে। যে জিনিসটার সাথে সবচেয়ে বেশি সক্ষতা সেটা হলো বই। আর আমার নিজের লেখা একটা বই এটা আরও বিশাল ভালোলাগা। অনেক বই পড়েছি জীবনে কিন্তু কোনোদিন প্রানের মেলা বইমেলা যাওয়া হয়নি কারণ একটা নিয়ত ছিলো আমার‍ যে, 'যেদিন আমার নিজের লেখা বই প্রকাশিত হবে ঠিক সেদিনই আমি বইমেলায় যাবো' আর ঠিক সে স্বপ্ন পূরণ করতে পেরেছি এবছর এটাই অনেক বড় প্রাপ্তি। যাদের অনুপ্রেরণায় আজকে এই বই এসেছে সকলের মাঝে তাদের কাছে একজীবন ঋনি থাকবো। বইটি নিয়ে এক সোনালী স্বপ্ন ভাসে আমার চোখে। এখন বাকিটা স্রষ্টার হাতে আর পাঠকের হাতে। তবুও সকলের জন্য অবিরাম ভালোবাসা। 

রিপোর্টার: আপনার ব‌ইয়ের ধরণ সম্পর্কে আমরা জেনেছি, এটি কবিতার বই। ব‌ই সম্পর্কে কি আরেকটু বিস্তারিত আপনার পাঠকদের উদ্দেশ্যে বলা যাবে? আর ব‌ইতে পাঠকদের জন্য নতুন চমক হিসেবে কি থাকছে? কেমন সাড়া আশা করছেন? 

সজীব: আচ্ছা, যদি বই সম্পর্কে আরেকটু ভেঙে বলি তাহলে বলবো যে,

"জীবন কবির এক কবিতা,

জন্মের ছন্দে কাব্য শুরু,

শেষ মৃত্যুর ছন্দে,

মূল ধারার বক্তব্য শেষে,

কবিতা জীবন বলে।"


'কবিতা জীবন বলে' বইটি একটি বহমান জীবনের আলোকে সৃষ্ট কাব্যগ্রন্থ। একটি জীবন জন্ম থেকে শুরু করে মৃত্যু অব্দি ভাঙাগড়ায় চলতে থাকে। কখনো প্রচন্ড সুখ কখনো চরম দুঃখ আরও অনেক কিছুর মিশেল এক জীবনের কাব্যিক রুপ হলো এই 'কবিতা জীবন বলে'।

জীবন সম্মন্ধে জানতে আগ্রহী নয় শুধু বরং বিদিশা মানুষ। যেহেতু জীবন'কে কেন্দ্র করে এই কাব্যগ্রন্থ রচয়িত, আশাকরি ভালো কিছু হবে ইনশাআল্লাহ। 

একটি জীবন তুলে ধরায় আমার উদ্দেশ্য। কিন্তু একটি বইয়ে কোনোদিন এক জীবন তুলে ধরা সম্ভব না। সেক্ষেত্রে এর আরও খন্ড আসবে বলে বলতে পারি যদি এই বইটি পাঠক সমাজে সাড়া ফেলে।  

রিপোর্টার: ধন্যবাদ আপনাকে।

সজীব: আপনাকেও ধন্যবাদ।

Tag

Comments (0)

Comments